আমরা তো কতই বলি,বাংলাদেশের এইখানে র,সেইখানে র ইত্যাদি ইত্যাদি। আচ্ছা আপনাদের কি ধারনা,এদেশে র আছে,ভারতে আমাদের ডিজিএফআই নেই? আমরা কি আমাদের গোয়েন্দা সংস্থার সক্ষমতা সম্পর্কে আদৌ অবগত? চলুন আজ জেনে নেই ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা র এর ভেতর ঢুকে পড়া এক ডিজিএফআই এজেন্ট এর কথা!! ?

                      DGFI Logo

ঘটনাটি অনেক থ্রিলারকেও হার মানায়। এত সুচারুভাবে দক্ষতার সাথে এই ধরনের গুপ্তচরবৃত্তি সত্যিই অবাক করার মতো। তো যেই এজেন্ট টির কথা বলছি তার প্রকৃত নাম জানা না গেলেও তার ছদ্মনাম ছিল “দিওয়ান-চান্দ-মালিক”।
.
দিওয়ান চান্দ মালিক মুলত ছিলেন একজন দুর্ধর্ষ বাংলাদেশি স্পাই। ১৯৯৯ সালে তিনি ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা র তে যোগদান করেন ভুয়া কাগজপত্র ও ছদ্মনাম ব্যাবহার করে। আমাদের বিশ্ববিখ্যাত (?) র এর দাদাবাবুরা তাকে ধরতে পারেনি। কারন,তিনি খুব ভালো ভাবেই ছক কষে এগিয়েছিলেন। তিনি বেশ কয়েকবছর পশ্চিম বঙ্গে ছিলেন ও তার লেখাপড়া ও শেষ করেন কলকাতা থেকেই। আসলে লেখাপড়া আর কি সবই তো ভুয়া পরিচয় বানানোর ছুতো। তার দ্রুতই পদোন্নতি হতে থাকে ও তিনি কলকাতাতে র এর Aviation Research Centre (ARC) এ ক্লাস-১ এর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন। ফলে তার কাছে র এর অনেক ভাইটাল ইনফরমেশন ছিল র এর ব্যাপারে। অথচ র এর এত বুদ্ধিমান কর্মকর্তারা কিছুই ধরতে পারে নি। যদি সেই দু:খজনক ঘটনাটি না ঘটতো তবে হয়ত তিনি আজও র এর কোন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা হিসেবে থাকতেন। ?
.
দিওয়ান চান্দ মালিক ২০০৫ সাল পর্যন্ত র এর Aviation Research Centre (ARC) এ উচ্চপদস্থ অফিসার হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন। পরে তার পরিচয় ফাস হয় তার বজ্জাত বৌ এর কারনে। ২০০৫ এর শুরুর দিকে তার স্ত্রী কোর্টে ডিভোর্স এর আবেদন করে। কিন্তু চতুর দিওয়ান চান্দ মালিক তখনই বুঝে যান পালাবার সময় এসেছে। তো তিনি তার কর্মস্থল থেকে ছুটি নেন। এভাবে তিনি কোর্টের বেশ কয়েকটা ডেট মিস করার ফলে তার স্ত্রী ব্যাপক ভাবে ক্ষেপে যান ও র এর কর্মকর্তাদের কাছে চিঠি লিখে জানিয়ে দেন যে দিওয়ান চান্দ মালিক মুলত বাংলাদেশী স্পাই। র এর লোকেরা আর ঘটনাটির ভয়াবহতা বুঝতে দেরি করে নি। তাকে ধরার জন্য র উঠে পড়ে লাগে তবে কোন পাত্তা পাওয়া যায় নি। পরে আদালত তাকে অপরাধী ঘোষনা করলে তার বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক লুক আউট নোটিস জারী করা হয়।
.
এর কয়েক মাস পর,চব্বিশ পরগনায় হঠাৎ তার হদিস পেয়ে যায় র। তবে অসাধারন কৌশলের প্রয়োগ করে সেই জাল থেকেও মুক্ত হয়ে পালিয়ে আসেন দিওয়ান চান্দ মালিক। এর পর থেকে র শুধু খুজেই গিয়েছে,আজ অবধি দিওয়ান চান্দ মালিকের কোন হদিস তারা পায় নি।
.
এটাই ছিল র এর ইতিহাসে সবচাইতে বড় স্পাই স্ক্যান্ডাল এর কাহিনী। একজন নাহয় ধরা পড়েছে,অন্য কতজন আছে তা কে বলতে পারবে? ?
.
যোদ্ধা তো অনেকেই হয়,কিন্তু সব বিসর্জন দিয়ে দেশের জন্য ধরা পড়ার চিন্তা সবসময় মাথায় নিয়ে কতজন পারে এরুপ ভাবে দেশসেবা করতে? নাম না জানা সেই অসংখ্য গোয়েন্দাদের জন্য রইলো শ্রদ্ধা ও সালাম।
.
Be proud for DGFI
Be proud as a Bangladeshi

Facebook Comments

11 Comments

উন্মাদ · December 13, 2017 at 1:20 pm

শেলুট স্যার

Chodna · December 13, 2017 at 6:48 pm

অতি কাল্পনিক

    Mahim Pervez · December 14, 2017 at 1:57 pm

    You proved your name 🙂

Nayeem · December 14, 2017 at 5:48 am

I don’t understand why you guys have to spread such bullshit stories? Why you have to write offensive words to a neighbouring countries intelligence force? If possible than share some solid mission take a look on CIA’s case files. People are smarter than you 🙂

    Mahim Pervez · December 14, 2017 at 1:57 pm

    Lol. It’s totally true. Search on the web it’s a famous incident and the biggest spy scandal of RAW. If you are butthurt then there’s nothing to do

      melon · January 15, 2018 at 11:44 am

      any prove about this post , can you show ?

Nazmul · December 16, 2017 at 4:32 am

দারুন পোষ্ট, এরকম ভারতীয়েদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের বাংলাদেশের গৌরবগাথা পোষ্ট চাই…অনেক ধন্যবাদ

Al Jaim Pappu · December 26, 2017 at 6:14 am

গুড নিউজ

Al Jaim Pappu · December 26, 2017 at 6:15 am

হলিউডে এমন কাহিনী আছে

melon · January 15, 2018 at 11:43 am

any prove about this post , can you show ?

Mozammel · January 15, 2018 at 6:56 pm

স‌ত্যিই অসাধারণ ঘটনা। বাংলা‌দে‌শের বা‌হিনীগু‌লোর সক্ষমতার উপর অামা‌দের য‌থেষ্ট অাস্থা অা‌ছে। দুর্বল রাজ‌নৈ‌তিক নেতৃ‌ত্বের কার‌ণে অামরা অামা‌দেরবো‌হিনীগু‌লোর যোগ্যতার সুফল পা‌চ্ছি না।
বাংলা‌দে‌শের স্পর্শকাতর ও গুরূত্বপূর্ণ জায়গা গু‌লো‌তে ‘র’ যে গো‌য়েন্দা‌গি‌রি‌ চালা‌চ্ছে সেটা ইতিপূ‌র্বের অ‌নেক ঘটনায় ধারণা পাওয়া গে‌ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: