রাঙ্গামাটি সদর উপজেলার রাঙ্গামাটি-কাপ্তাই সড়ক সংলগ্ন বিলাইছড়ি পাড়ায় গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে বিশেষ অভিযান চালিয়ে তিনজনকে অস্ত্রসহ আটক করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী।এসময় সেনাবাহিনীর উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে গেছেন আরও কয়েকজন দুষ্কৃতিকারী।আজ শনিবার (২২ ডিসেম্বর) সকালে এই অভিযান পরিচালনা করা হয় বলে সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

উক্ত বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আটককৃতরা হলেন- শীর্ষ অস্ত্র ব্যবসায়ী ও জনসংহতি সমিতির সাবেক সশস্ত্র গ্রুপ কমান্ডার বিশ্বজ্যোতি চাকমা ওরফে বাগানবাবু ওরফে কিংকর ওরফে সিদং (৫০), তার অন্যতম সহযোগী বিনয় ত্রিপুরা ওরফে সঞ্জয় ওরফে বাখর (৪৩) ও উল্যা প্রু মার্মা (৪৭)। আটককৃতদের কাছ থেকে এসময় একটি ৭.৬২এমএম লাইট মেশিনগান ও একটি ৯এমএম সাবমেশিনগান উদ্ধার করা হয়।

ছবিতে আটককৃত ব্যক্তিদের সামনে যুক্তরাজ্যের তৈরি bren লাইট মেশিনগান(এলএমজি) ও স্টার্লিং সাবমেশিনগান দেখা যাচ্ছে।ব্রেনগান নামে পরিচিত এই মেশিনগানটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর আজ অবধি প্রায় সকল যুদ্ধেই ব্যবহার হয়েছে।প্রায় ১১কেজি ওজন ও সর্বাধিক ১.৬৯ কিঃমিঃ দূরত্বে ফায়ার করার ক্ষমতা সম্পন্ন এই ভয়ংকর অস্ত্রটির ফায়াররেট প্রতি মিনিটে ৫০০-৫২০ রাউন্ড।সাম্প্রতিক সময়ে পাহাড়ে ব্রাশ ফায়ারের বেশ কিছু ঘটনা আমরা দেখেছি যেখানে এসল্ট রাইফেল ব্যবহার করা হয়েছিল।সামরিক বাহিনীর ব্যবহৃত এধরণের মেশিনগান পাহাড়ি সন্ত্রাসীদের হাতে পড়লে তা দিয়ে সেনাবাহিনী ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ নিরীহ পাহাড়ি জনগণের ব্যাপক ক্ষতি করা সম্ভব ছিল।

Bren Light Machine Gun

ছবিতে দেখা যাওয়া ২য় অস্ত্রটি হচ্ছে যুক্তরাজ্যের তৈরি বিখ্যাত স্টার্লিং সাবমেশিনগান।আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় মুক্তিযোদ্ধারা এই অস্ত্র ব্যাপকভাবে ব্যবহার করেছিলেন।মাত্র ২.৭ কেজি ওজনের ও প্রতি মিনিটে ৫৫০ রাউন্ড নাইন মিলিমিটার গুলি করতে সক্ষম এই সাবমেশিনগানটি পাহাড়ি সন্ত্রাসীদের হাতে গেলে মারাত্মক রূপ ধারণ করতে পারতো।

Sterling Submachine Gun

আটককৃতরা দীর্ঘদিন ধরে রাঙ্গামাটি ও খাগড়াছড়ি জেলায় অবস্থানরত আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল ইউপিডিএফ (মূল) ও জেএসএস (মূল) দলের সশস্ত্র শাখাসমূহকে অস্ত্র সরবরাহ করে আসছিল বলে জানানো হয়েছে ঐ বিজ্ঞপ্তিতে। এছাড়া জাতীয় নির্বাচনের আগে চক্রটি কোনো একটি আঞ্চলিক দলের সশস্ত্র শাখাকে একটি বড় অস্ত্রের চালান সরবরাহ করার পরিকল্পনা করছিল বলেও সেখানে উল্লেখ করা হয়।

সেনাবাহিনীর জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতরা জানায়, সম্প্রতি তারা ইউপিডিএফ (মূল) দলকে ছয়টি একে-৪৭ সরবরাহ করেছে। নিরাপত্তা বাহিনীর কাছে তথ্য ছিল যে, জাতীয় নির্বাচনের পূর্বে এই চক্রটি কোনো একটি আঞ্চলিক দলের সশস্ত্র শাখাকে একটি বড় অস্ত্রের চালান সরবরাহ করার পরিকল্পনা করছিল।গ্রেফতারকৃত বিশ্বজ্যোতি চাকমা ওরফে কিঙ্কর অপর একটি মামলার ১০ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি এবং আন্তঃরাষ্ট্রীয় অস্ত্রব্যবসা ও চোরাচালানি সিন্ডিকেটের অন্যতম শীর্ষ ব্যক্তি।

Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: